Published: 04 নভে 2021

সোনায় বিনিয়োগের পূর্বে কি জানা প্রয়োজন?

পরম্পরাগতভাবে, স্বর্ণে বিনিয়োগ করা ছিল একটি সহজ লেনদেন, যার সাথে জড়িত ছিল বাস্তব সম্পদের মালিকানা। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে, বাজারের বিবর্তনের ফলে সোনায় বিনিয়োগের নতুন উপায় এসেছে। স্বর্ণে লেনদেন করার একটি মাধ্যম হল গোল্ড ফিউচার্স, যা স্বর্ণের বাজারের সাথে ফিউচারস ট্রেডিংয়ের নীতিগুলোকে একত্রিত করে।

আপনি যদি গোল্ড ফিউচার্স-এ বিনিয়োগ করতে চান, তবে কিছু সহজ কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর জেনে নেওয়া আপনার জন্য জরুরী।

গোল্ড ফিউচার্স-এ কিভাবে লেনদেন হয়?

ভারতে, BSE, NSE এবং MCX-এর (মাল্টি কমোডিটি এক্সচেঞ্জ) মাধ্যমে এক গ্রাম থেকে এক কিলো পর্যন্ত গোল্ড ফিউচার্স লেনদেন করা যায়। ক্রেতা একটি নির্দিষ্ট মেয়াদী চুক্তিতে প্রবেশ করে, যেখানে সে চুক্তিতে নির্দিষ্ট একটি মূল্যে ভবিষ্যতের কোনও তারিখে সোনা কিনতে বা বিক্রি করতে সম্মত হয়। যদিও চুক্তিতে কোনো নির্দিষ্ট পরিমাণ স্বর্ণের কথা উল্লেখ করা হতে পারে, আপনাকে পুরো পরিমাণ অগ্রিম বিনিয়োগ করতে হবে না। এর পরিবর্তে, আপনি মোট মূল্যের শতকরা একটি ছোট অংশ প্রদান করতে পারেন, যা "মার্জিন" নামে পরিচিত।

অন্যান্য বিনিয়োগের মতোই, চুক্তি চলাকালীন স্বর্ণের দাম কোনদিকে যায় তার উপর নির্ভর করে আপনি গোল্ড ফিউচার্স চুক্তির মাধ্যমে অর্থ লাভ বা লোকসান, দুটিই করতে পারেন। দামের পরিবর্তন (বাড়া বা কমা উভয়ই) টিকসের মাধ্যমে পরিমাপ করা হয়, যা বাজারের দ্বারা পরিমাপ করা দামের সবচেয়ে ছোট পরিবর্তন। যেমন, MCX গোল্ড ফিউচার্স কন্ট্রাক্টে, টিক সাইজ হলো 0.10 (বা প্রতি 10 গ্রামে 1 টাকা)। সুতরাং, যদি আপনার লট সাইজ হয় 1 কিলো (1000 গ্রাম), তাহলে প্রতি টিক মুভমেন্টে আপনার লাভ বা ক্ষতি হবে 100 টাকা। আপনি চুক্তি চলাকালীন সোনার দামের গতিবিধি থেকে লাভ করতে পারেন, বা আপনার ইচ্ছানুসারে চুক্তির মেয়াদ শেষে প্রকৃত সোনা গ্রহণ করতে পারেন।

কোনটি আপনার লক্ষ্যের জন্য উপযুক্ত হবে - দীর্ঘমেয়াদী না স্বল্পমেয়াদী চুক্তি?

এখানে লক্ষ্য করা জরুরী যে গোল্ড ফিউচার্স চুক্তিগুলো দাম ওঠানামার বিরুদ্ধে একটি হেজ, বা বাধা প্রদান করে, এবং অনুমানের ওপর মুনাফা অর্জনের সুযোগ দেয়। যেসব ব্যবসা স্বর্ণ আমদানি, রপ্তানি, উৎপাদন বা লেনদেনে জড়িত তারা এই ঝুঁকি থেকে রক্ষা পেতে এবং স্বল্পমেয়াদে সম্ভাব্য ক্ষতি পূরণ করতে গোল্ড ফিউচার্স চুক্তি ব্যবহার করতে পারে।

সাধারণ বিনিয়োগকারীরাও টিক মুভমেন্ট ব্যবহার করে মুনাফা অর্জন করতে পারেন। যদিও বেশিরভাগ মানুষই গোল্ড ফিউচারর্সকে স্বল্পমেয়াদী হেজিংয়ের একটি উপায় হিসাবে ব্যবহার করেন, ভবিষ্যতে সোনার দাম বৃদ্ধিকে পুঁজি করতে চাওয়া বিনিয়োগকারীরা তাদের চুক্তি দীর্ঘমেয়াদে, এক বছর পর্যন্ত নির্ধারণ করতে পারেন।

আপনি কোন ধরনের বিশ্লেষণ ও বিনিয়োগ পদ্ধতি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা করছেন?

গোল্ড ফিউচার্স বিনিয়োগকারীরা তাদের বিনিয়োগের জন্য মৌলিক পদ্ধতি বা প্রযুক্তিগত পদ্ধতি, অথবা উভয়ের সমন্বয় অনুসরণ করতে পারেন। মৌলিক বিশ্লেষণ পদ্ধতি স্বর্ণের চাহিদা ও সরবরাহের গতিশীলতা, বর্তমান ঘটনাবলী এবং বাজারের গতিবিধি, সেইসাথে অর্থনৈতিক চক্র বিবেচনা করে। প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ তুলনামূলক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির উপর নির্ভর করে, প্রাইসিং চার্ট, সূচক এবং ফিবোনাচি এক্সটেনশন ও মোমেন্টাম অসিলেটরের মতো টুলগুলোর সাহায্য নেয়। যদিও মৌলিক পদ্ধতি সম্পদের প্রকৃত মূল্য বোঝার চেষ্টা করে, প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ ভবিষ্যতে দামের গতিবিধি অনুসন্ধান করে। গোল্ড ফিউচার্স বিনিয়োগকারীরা উভয় পদ্ধতির অধীনেই পাওয়া অন্তর্দৃষ্টি থেকে উপকৃত হবে।

আপনি কি গোল্ড ফিউচার্স-এর ওপর বাজারের প্রবণতার প্রভাব বোঝেন?

স্বর্ণের বাজার বোঝা বিষয়টি একটি বিস্তৃত অভিব্যক্তি, যার মাঝে স্বর্ণের দামকে প্রভাবিত করে এমন সমস্ত কিছুই অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। গোল্ড ফিউচার্স বিনিয়োগকারী হিসাবে, আপনাকে মার্কিন ডলারের মূল্য, বন্ডের দাম, সরকারের সুদের হার নীতি এবং সোনার দামকে প্রভাবিত করে এমন বড় অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তগুলোর দিকে নজর রাখতে হবে। বিয়ের মৌসুমের আগমন এবং কৃষিগত অবস্থাও ভারতে সোনার দামকে প্রভাবিত করতে পারে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক দ্বারা উচ্চ পরিমাণে সোনার লেনদেনও আরেকটি কারণ যা স্বর্ণের বাজারে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

আপনি কী ধরনের ট্রেডিং পরিকল্পনা অনুসরণ করতে চান?

ইক্যুইটি বিনিয়োগের মতো, আপনাকে একটি বুলিশ বা বিয়ারিশ পজিশন তৈরি করতে হবে এবং তার উপর ভিত্তি আপনার বিনিয়োগ পরিকল্পনা গড়ে তুলতে হবে। এছাড়াও, আপনার অপারেশনাল স্টাইলও আপনার বিনিয়োগ পরিকল্পনা নির্মাণ করবে। আপনি চাইলে স্ক্যালপার হতে পারেন, যারা একটি সেশন চলাকালীন একাধিকবার প্রবেশ ও প্রস্থান করে। তুলনামূলক স্বল্পপরিচিত আরেকটি ট্রেডিং স্টাইল হলো ডে ট্রেডিং, যেখানে আপনি একটি অবস্থান অন্তত এক দিনের জন্য ধরে রাখবেন এবং দামের গতিবিধি মূল্যায়ন করবেন। একজন পজিশন ট্রেডার বাজারের ওঠানামা নয়, প্রবণতা অনুসরণ করবে, ফলে অনেক কম লেনদেন হবে। আপনার অবস্থান যাই হোক না কেন, সেটি গ্রহণ করার আগে নিশ্চিত করুন যে আপনি এর কারণ বুঝতে পেরেছেন, এবং আপনি এই ট্রেডিং প্ল্যান অনুসরণ করবেন।

গোল্ড ফিউচার্স-এ বিনিয়োগ একটি লাভজনক উপায় হতে পারে, যদি চুক্তি সম্পর্কে আপনার যথাযথ ধারণা থাকে, এবং বিস্তারিত একটি বিনিয়োগ পরিকল্পনা থাকে। গোল্ড ফিউচার্স-এ কোনও বিনিয়োগ করার আগে যাতে আপনার একটি সম্যক ধারণা পান সেজন্য আপনার নিজের পক্ষে এই প্রশ্নগুলোর উত্তর দেওয়া জরুরী।